পার্বত্য শান্তিচুক্তির বেহাল দশা (Negligence blamed for slow execution of CHT peace treaty)

প্রথম আলো ডিসেম্বর ১, ২০১২

santu larmaপার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নে সরকারের রাজনৈতিক সদিচ্ছা ও আন্তরিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) সভাপতি ও পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় (সন্তু) লারমা। তিনি বলেছেন, চার বছর ধরে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করার পরও যদি সরকার একটা আইন (পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন আইন, ২০০১) সংশোধন করতে না পারে, তাহলে চুক্তি বাস্তবায়নে তার আন্তরিকতা ও সদিচ্ছা নিয়ে প্রশ্ন তোলাই স্বাভাবিক।

চুক্তির পঞ্চদশ বর্ষপূর্তি উপলক্ষে ঢাকার একটি হোটেলে গতকাল শুক্রবার সকালে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সন্তু লারমা বলেন, চুক্তি বাস্তবায়নে সরকারের নীতিনির্ধারকদের সদিচ্ছার অভাব প্রকট। আমলাতন্ত্রের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের মধ্যে সাম্প্রদায়িক ও জাতিবিদ্বেষী মনোভাব প্রবল। নির্বাচনী ইশতেহারে চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নের অঙ্গীকার সরকারের প্রতিশ্রুতির মধ্যেই সীমাবদ্ধ।

সন্তু লারমা বলেন, গত চার বছরে চুক্তি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে মৌলিক কোনো অগ্রগতি হয়নি। সরকার ক্ষমতায় আসার পর চুক্তি বাস্তবায়ন কমিটি ও ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন পুনর্গঠন করে। তিনজন জুম্ম সাংসদের একজনকে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী, একজনকে ভারত প্রত্যাগত শরণার্থী ও অভ্যন্তরীণ উদ্বাস্তু পুনর্বাসন-সংক্রান্ত টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান এবং একজনকে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নিয়োগ করে। কিছু রাবার বাগানের অবৈধ বরাদ্দ বাতিল এবং কাপ্তাই ব্রিগেডের সদর দপ্তরসহ ৩৫টি অস্থায়ী সেনা ক্যাম্প প্রত্যাহার করে। মাস খানেক আগে স্থানীয় পর্যায়ের গুরুত্বহীন কয়েকটি বিভাগ ঘটা করে জেলা পরিষদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। চুক্তি বাস্তবায়নে আর কোনো কার্যকর উদ্যোগ সরকার নেয়নি।

এক প্রশ্নের জবাবে সন্তু লারমা বলেন, সরকার আন্তরিক হলে তার বর্তমান মেয়াদের মধ্যেই চুক্তির মৌলিক কোনো কোনো বিষয় বাস্তবায়ন করতে পারে।

১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর সরকার ও জেএসএসের মধ্যে স্বাক্ষরিত ওই চুক্তি স্বায়ত্তশাসনকামী পাহাড়িদের সঙ্গে মধ্য-সত্তর দশক থেকে চলা রক্তক্ষয়ী এক সংঘর্ষের অবসান ঘটিয়েছিল। কিন্তু গত ১৫ বছরে চুক্তির একটি মৌলিক বিষয়ও বাস্তবায়িত না হওয়ায় পার্বত্য চট্টগ্রামে চুক্তি-পূর্ব অস্থিতিশীল পরিস্থিতির উদ্ভব হয়েছে। গতকালের সংবাদ সম্মেলনেও সন্তু লারমা বলেছেন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রামের বিদ্যমান পরিস্থিতি নিঃসন্দেহে অশান্ত ও জটিলতম।’

সংবাদ সম্মেলনে প্রবীণ রাজনীতিক পংকজ ভট্টাচার্য বলেন, চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য দরকার রাজনৈতিক সদিচ্ছা ও কার্যকর উদ্যোগ। এর কোনোটিই সরকারের নেই, আছে শুধু প্রতিশ্রুতি।
জেএসএসের সাংগঠনিক সম্পাদক শক্তিপদ ত্রিপুরা এবং এনজিওব্যক্তিত্ব নুমান আহমেদ খানও বক্তব্য দেন। উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক রোবায়েত ফেরদৌস, জাতীয় আদিবাসী পরিষদের সভাপতি রবীন্দ্রনাথ সরেন প্রমুখ।

চুক্তির মৌলিক বিষয়গুলো
গতকালের সংবাদ সম্মেলনে সন্তু লারমা চুক্তির মৌলিক বিষয়গুলো বাস্তবায়ন হয়নি বলে উল্লেখ করেছেন। চুক্তির সেই প্রধান দুটি বিষয় হলো, পার্বত্য চট্টগ্রামের ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি এবং পার্বত্য চট্টগ্রামকে উপজাতি-অধ্যুষিত বিশেষ অঞ্চলের স্বীকৃতি দেওয়া। এর একটি বিষয়েও সরকার এখন পর্যন্ত কার্যকর পদক্ষেপ নেয়নি। এ ছাড়া আঞ্চলিক পরিষদের দায়িত্ব ও ক্ষমতা কার্যকর করা হয়নি। তিন পার্বত্য জেলা পরিষদের কাছেও যথাযথ দায়িত্ব ও ক্ষমতা হস্তান্তর করা হয়নি।
প্রণয়ন করা হয়নি আঞ্চলিক পরিষদ বিধিমালাসহ অন্য বিধিমালা। আঞ্চলিক ও জেলা পরিষদের নির্বাচন করা হয়নি। চুক্তি অনুযায়ী তিন জেলার অস্থায়ী সেনা ক্যাম্পও সরিয়ে নেওয়া হয়নি। এ ধরনের প্রায় ৫০০ ক্যাম্পের মধ্যে বর্তমান সরকার ৩৫টি এবং এর আগে আরও ৩১টি ক্যাম্প সরিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে সরকারি-বেসরকারি সূত্রগুলো জানায়।
চুক্তি অনুযায়ী স্থানীয় পর্যায়ের সরকারি দপ্তর ও বিভাগের মধ্যেও গুরুত্বপূর্ণগুলো এখন পর্যন্ত জেলা পরিষদের কাছে হস্তান্তর করা হয়নি।

Indigenous people ‘face extinction’

Santu demands right to observe

Santu Larma stays away from event

A vested quarter backing UPDF, alleges Larma

Khaleda’s remarks on Santu Larma protested

Santu Larma’s car attacked in Rangamati

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s